HUMAN BODY NOISES

Human Body Noises: মানুষের শারীরিক শব্দ

Posted on

ত বন্ধুরা আজকে আমরা আলোচনা করব আমাদের শরীরে বিভিন্ন অংশের ভিন্ন ভিন্ন আওয়াজ নিয়ে। আমাদের এই চমতকার শরীরের বিভিন্ন অংশের বিভিন্ন রকম আওয়াজ আমরা শোনে থাকি। যেমন আমদের হাতের আঙ্গুল ফোটানোর আওয়াজ, হাচির আওয়াজ আরো নানা রকম আওয়াজ নিয়ে আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করব। তার সাথে এই আওয়াজগুলো করতে গিয়ে আমাদের কিরকম পরিস্তিতিতে পড়তে হয় এবং এসব পরিস্তিতি আমরা কিভাবে মোকাবেলা করব সে বিষয়ে আলোচনা করব। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

SNORTING

সর্দিতে নাক আটকে গেলে নিশ্বাস নেওয়ার সময় যে আওয়াজ হয়।
অনেক সময় ঠান্ডার কারণে আমাদের সর্দি এসে নাক জ্যাম হয়ে যায়। তখন নিশ্বাস নিতে কষ্ট হয়। তখন আমরা জোরে নিশ্বাস নিতে চেষ্টা করি। জোরে নিশ্বাস নিতে গিয়ে যে একটা আওয়াজ সৃষ্টি হয় সেটাকে Snorting বলে। এই আওয়াজটা আপনাকে এতটা অস্বস্থিকর পরিস্তিতিতে ফেলবেনা। তারপরও মানুষের সামনে এরকম আওয়াজ করা থেকে বিরত থাকুন।

BELCHING

ঢেকুর তুলা।
যখন আপনি কোনকিছু পেটপুরে খাবেন তখন খাওয়ার পর পেট থেকে মুখ দিয়ে একধনের গ্যাস বের হয় , যেটাকে বাংলায় ডেকুর বলি। এটাকে BURPING ও বলা হয়। আপনি যদি কোন পার্টিতে গিয়ে বেশি খেয়ে খাওয়ার টেবিলে এরকম আওয়াজ করেন তাহলে টেবিলের অন্য লোকগুলো আপনার দিকে অদ্ভুত দৃষ্টিতে থাকাবে। তখন আপনি এরকম পরিস্থিতিটা সামাল দিতে বলতে পারেন দু:খিত খাবারটা অনেক ভাল হয়েছে।

HICCUP

 হেঁচকি।
হেঁচকিতেও একধরণের আওয়াজ থাকে। আমরা ছোটবেলায় শোনেছি দূরের কেউ যখন কাউকে স্বরণ করে তখন হেঁচকি আসে। আমি জানিনা কথাটা কতটা সত্য। তবে হেঁচকি আসলে মানুষের সামনে থেকে স্বরে একটু পানি খেয়ে নিলে এটা বন্ধ হয়ে যায়।

YAWNING

 হাই তোলা।
শরীরে আলসেমী আসলে আমরা হাই তোলি। হাই তোলাতেও একধরণের আওয়াজ থাকে। কারো সামনে হাই তোললে সামনের লোকটা একটু অসস্তিবোধ করে।

SNORING 

নাক ডাকা।
কিছু কিছু মানুষ ঘুমানের সময় তাদের নাক একধরণের আওয়াজ করে। এটাকে SNORING বলে। সাধারণত মোটা মানুষদের ঘুমানোর বেলায় এধরণের আওয়াজ হয়। ঘুমানেরা সময় নাক ডাকলে পাশের জনের ঘুমের অসুবিধা হয়। কথা হচ্ছে যে নাক ডাকে সে বুঝতে পারেনা ঘুমের মধ্যে সে নাক ডাকছে কিনা। তাই নাক ডাকাটা নিজের ইচ্ছে বিরুদ্ধে হয়ে থাকে। নাক ডাকা নিয়ে অনেকের অনেক অস্বস্তিকর পরিস্তিতিতে পড়তে হয় তারপর ও কিছু করার থাকেনা।

GROWLING TUMMY

পেটের আওয়াজ।
খুদা লাগলে বা পেট খালি হয়ে গেলে পেটের ভিতর একধরণের আওয়াজ হয়। পেট খারাপ হলেও এধরণের আওয়াজ করে। এরকম আওয়াজকে GROWLING TUMMY বলে। এই আওয়াজটা মানুষের ভিড়ে বুঝা যায়না। তাই এরকম আওয়াজ নিয়ে কোন অস্বস্তিকর পরিস্তিতিতে পড়তে হয়না।

HUM

 গুনগুন করা।
গুনগুন করা বলতে আমরা সবাই বুঝি, যখন আমরা মূখ বন্ধ রেখে গলার ভিতরে একধরণের আওয়াজ করি। কোন গানের কলি উচ্চরণ না করে মুখ বন্ধ রেখে একধরণের সুরের মত আওয়াজ করি।

PANT

জোরে জোরে নিশ্বাস নেওয়া।
টানা কোন কাজ করার পর বা দৌড়ার পড় যখন আমরা একটু বসি তখন আমাদের নিশ্বাস অনেক দ্রুত উঠা নামা করে। এটাকে PANT বলে।

SNIFF

নাক দিয়ে ঘ্রাণ নেওয়া।
কোন কিছুর আবছা গন্ধ পেলে সেই গন্ধ আরো স্পষ্ট করার জন্য আমরা নাক দিয়ে শোঁকরা চেষ্টা করি। তখন আমাদের নাক দিয়ে একধরণের আওয়াজ হয় সেটাকে ঝঘওঋঋ বলে।

SIGH

স্বস্তির নিশ্বাস।
কোন কিছু সফলভাবে শেষ করার পর বা কোন কিছু নিয়ে দু:চিন্তার পর যখন সেটা সফলভাবে সম্পন্ন হয় তখন আমাদের শরীর থেকে সয়ংক্রিয়ভাবে একটা নিশ্বাস বের হয়ে যায়। সেটাকে SIGH বলে।

ত বন্ধুরা আজকে জানলাম আমাদের শরীরের বিভিন্ন অংশের বিভিন্ন রকম আওয়াজকে ইংরেজীতে কিভাবে বলতে হয়। আজকে এই পর্যন্তই। আরো নতুন নতুন শব্দ জানতে আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।